Kode Iklan atau kode lainnya

Big News: সরকারি চাকরিতে ৫ লক্ষ নিয়োগ, শিক্ষক পদে নিয়োগ হবে ১ লাখ! বিরাট দাবি মমতার

শিক্ষক নিয়োগ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নিউজ ডেস্ক: রাজ্যের বেকার চাকরি প্রার্থীদের জন্য বড় সুখবর শোনালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিপুল সংখ্যক নিয়োগের কথা বললেন তিনি। সরকারি চাকরিতে ৫ লক্ষ নিয়োগ হবে, তার মধ্যে এক লাখ শিক্ষক পদে, বড় ঘোষণা মমতার। রাজ্য সরকারি চাকরিতে প্রায় ৫ লক্ষ শূন্যপদ রয়েছে, এই বিপুল সংখ্যক শূন্যপদ সরকার পূরণ করতে চায় বলে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী।

সোমবার আরামবাগে প্রশাসনিক সভা থেকে বড় খবর শোনালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নিয়োগের সুখবর দিয়ে তিনি জানালেন, রাজ্য সরকারি চাকরিতে প্রায় ৫ লক্ষ শূন্যপদ রয়েছে। সরকার ওই সব শূন্যপদ পূরণ করতে চায়। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, এই ৫ লক্ষের মধ্যে ১ লক্ষ শূন্যপদ রয়েছে শিক্ষকদের জন্য। এ ছাড়া পুলিশে নিয়োগ করা হবে ৬০ হাজার।

এরাজ্যে সরকারি চাকরিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া থমকে যাওয়া নিয়ে বিরোধীদের দায়ী করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন “আমি সরকারি চাকরিতে ৫ লক্ষ পদ তৈরি করতে চাইছে। শুধু বিজেপি আর সিপিএমকে বলুন না আটকাতে। ওদের কোনও মায়াদয়া নেই।”

মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “আদালতে যেতে কারও বাধা নেই। কিন্তু ওরা আদালতে যাচ্ছে আর মামলা করে চাকরি আটকে দিচ্ছে। তার পর বলছে, কেমন আটকে দিলাম। অথচ ১ লক্ষ শিক্ষক নিয়োগ করতে হবে সরকারকে। পুলিশে ৬০ হাজার নিয়োগ করা হবে। সব মিলিয়ে সরকারি চাকরিতে ৫ লক্ষ নিয়োগ হবে।”

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “এবার শিল্প হবে। চারদিকে চাকরি চাই, চাকরি চাই আওয়াজ। আমরা চাই ৫ লক্ষ মানুষকে নিয়োগ করতে। কিন্তু সিপিএম ও বিজেপি নেতাদের বলুন দয়া করে বেকার যুবক যুবতীদের ভবিষ্যত নষ্ট করবেন না। কোর্টে যে কেউ যেতে পারে। এটা তার অধিকার। এত শিক্ষক লাগবে। এত লোকের চাকরি হবে। এত পোস্ট খালি রয়েছে। আপনাদের মায়া লাগে না? আপনাদের জন্য নিতে পাচ্ছি না। এই কয়েকটা সিপিএম, কংগ্রেস ও বিজেপি নেতার জন্য। কয়েকটা ফুরফুরের জন্য। উড়ে বেড়াচ্ছে। চাকরি পেলে তাদের লোকসান। তারা চায় না পুলিসে লোক নেওয়া হোক। পুলিসে ৬০ হাজার নিয়োগ হবে, প্রায় ১ লাখ শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। বিভিন্ন  দফতরে প্রায় ৫ লাখ নিয়োগ হবে। যেই আমরা রেডি করছি তেমনি টুক করে একটা কেস ঠুকে দিচ্ছে। দিয়ে, হাসতে হাসতে বলেছে, চাকরিটা করতে দেব না। জমিদারি পেয়ে গিয়েছে! সাহস থাকলে ভোটে লড়ুন। রাস্তায় নেমে গণতন্ত্রের রাজনীতিটা করুন। দুর্নীতি করবে না। এটাও এক ধরনের দুর্র্নীতি। যান রেলে গিয়ে খোঁজ নিন। কত দুর্নীতি করেছেন খোঁজ নিন। কই আমরা তো বাধা দিই না! যাক কিছু চাকরি তো হচ্ছে? ডিফেন্স কী করেছেন? কই আমরা তো বলি না! যাক মানুষ তো খেয়ে বাঁচছে। মনে রাখবেন, চাকরিবাকরি আটকাতে নেই।”

"