ব্রেকিং

6/recent/ticker-posts

Header Ads Widget

SSC শিক্ষক নিয়োগ: থাকছে না অ্যাকাডেমিক নম্বর, দুই ধাপে পরীক্ষা, ফিরছে ইন্টারভিউ, জানুন ১০টি পরিবর্তন

স্কুল সার্ভিস কমিশন শিক্ষক নিয়োগ

নিউজ ডেস্ক: রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগ ক্রমেই অনিয়মিত হয়ে পড়ছে। ২০১৪ সালের পর স্কুল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে সহকারি শিক্ষক নিয়োগের কোনও বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়নি। উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়াও দীর্ঘ আট বছর ধরে ঝুলে রয়েছে। এই অবস্থায় ক্ষোভ বাড়ছে চাকরি প্রার্থীদের। এরই মধ্যে দ্রুত নতুন শিক্ষক নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। 

স্কুল সার্ভিস কমিশনের(এসএসসি) মাধ্যমে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণিতে নতুন ১৯,৩৬৯ জন শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু সোমবার বৈঠক করেছেন। শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বচ্ছ করতে এসএসসি-র বিধিতে ব্যাপক পরিবর্তন আসছে। সেটা আইন বিভাগে পাঠিয়ে অনুমোদন নেওয়া হবে। এসএসসি-র এ ব্যাপারে কিছু পরিকল্পনাও আছে।

কী কী পরিবর্তন আসছে? 

১. রাজ্য জয়েন্ট বোর্ডের মতো এ বার এসএসসিতেও পরীক্ষার পরে প্রশ্নপত্রের মডেল উত্তরপত্র ওয়েবসাইটে আপলোড করা হবে। 

২. কোনও প্রশ্নের উত্তর নিয়ে পরীক্ষার্থীদের সংশয় বা আপত্তি থাকলে, সেটা কমিশনে নির্দিষ্ট সময়ের (৭-১৫ দিন) মধ্যে জানাতে হবে।

৩. কমিশনের মডেল উত্তরের সঙ্গে চাকরিপ্রার্থীদের উত্তর না মিললে এসএসসি তা বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞদের কাছে পাঠাবে। সেই বিশেষজ্ঞরা অবশ্যই অধ্যাপক সমতুল পদের হবেন। তাঁদের মতামত নিয়ে সংশোধিত অ্যানসার-কি আপলোড করা হবে। 

৪. বিশেষজ্ঞ কমিটির নির্ধারিত উত্তরই চূড়ান্ত। আর চ্যালেঞ্জ করা যাবে না।

৫. পরিবর্তিত যে প্রক্রিয়ায় শিক্ষক নিয়োগ শুরু করা হবে, তাতে দু'টি ধাপে পরীক্ষার প্রস্তাব রয়েছে। প্রিলিমিনারি ও বিষয়ভিত্তিক। 

৬. পরীক্ষা হবে ওএমআর শিটে, মাল্টিপল চয়েস কোয়েশ্চেনসে (এমসিকিউ)। 

৭. পরীক্ষা শেষে চাকরিপ্রার্থীরা ওএমআর শিটের নন-কার্বন ডুপ্লিকেট কপি পাবেন। যা তাঁরা বাড়িও নিয়ে যেতে পারবেন।

৮. অ্যাকাডেমিক নম্বর তুলে দেওয়া হচ্ছে। নবম-দশম ও একাদশ-দ্বাদশে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে এতদিন পরীক্ষার্থীদের অ্যাকাডেমিক স্কোর -অর্থাৎ, মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তরে প্রাপ্ত নম্বরের সঙ্গে বিএড প্রশিক্ষণে নম্বর বরাদ্দ থাকত। সব মিলিয়ে ৩৫ নম্বর। কিন্তু অ্যাকাডেমিক ক্ষেত্রে নম্বর বরাদ্দের বিষয়টি তুলে দেওয়ার প্রস্তাব উঠেছে।

৯. ২০২০-র আগের মতো এসএসসি-র নিয়োগে ইন্টারভিউ ফিরছে ইন্টারভিউয়ে ১০ নম্বর বরাদ্দ থাকবে। 

১০. সফল হয়ে প্যানেলে নাম উঠলে স্কুল বাছাইয়ে কাউন্সেলিংয়ের সুযোগ থাকছে।

শিক্ষা দফতরের প্রধান সচিবের দেওয়া হলফনামা অনুযায়ী,উচ্চ মাধ্যমিকে রয়েছে ৫,৫২৭টি শূন্যপদ রয়েছে। মাধ্যমিকে ১৩,৮৪২টি । এছাড়া সরকারি স্কুলে প্রধান শিক্ষকের জন্য ২,৩২৫টি শূন্যপদ রয়েছে। সব মিলিয়ে শূন্যপদের সংখ্যা ২১ হাজার ৬৯৪টি। এছাড়া রাজ্যের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী প্রাথমিকে শূন্যপদ তিন হাজার ৯৩৬ টি।