ব্রেকিং

6/recent/ticker-posts

Header Ads Widget

কলেজে লাইব্রেরিয়ান পদেও চরম নিয়োগ দুর্নীতির অভিযোগ সামনে এল, রিপোর্ট তলব কোর্টের

নিউজ ডেস্ক: স্কুল সার্ভিস কমিশন, প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের পর এবার কলেজ সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে নিয়োগের ক্ষেত্রেও দুর্নীতির অভিযোগ সামনে এল। লাইব্রেরিয়ান পদে নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন শান্তনু বসু নামে এক প্রার্থী। অভিযোগ, ওই পদে যোগ্য হওয়া সত্ত্বেও তাঁর থেকে কম নম্বর পাওয়া প্রার্থীদের নিয়োগ করা হয়েছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে নিয়োগ সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ তথ্য তলব করেছেন বিচারপতি অরিন্দম মুখোপাধ্যায়। 

রাজ্যের সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত কলেজগুলিতে লাইব্রেরিয়ান পদে নিয়োগের জন্য ২০১৯ সালে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল কমিশন। সেই অনুয়ায়ী ইন্টারভিউয়ের পর সুপারিশের ভিত্তিতে নিয়োগ হওয়ার কথা। অভিযোগ, বিজ্ঞপ্তির সব শর্ত পূরণ না করেই ওই পদে নিয়োগ পেয়েছেন বহু প্রার্থী। মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও স্নাতকস্তরে তাঁর চেয়ে কম নম্বর পাওয়া সত্ত্বেও অনেককে নিয়োগ দিয়েছে কমিশন। 

মামলাকারী অন্তত দশজন এমন প্রার্থীর কথা জানিয়েছেন, যাঁরা কম নম্বর পাওয়া সত্ত্বেও নিযুক্ত হয়েছেন। যদিও নিয়োগ প্রক্রিয়ায় কোনও কারচুপি হয়নি বলে দাবি করেছে কমিশন। উভয়পক্ষের বক্তব্য শোনার পর বিচারপতি বলেন, যেহেতু সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত কলেজে নিয়োগের প্রশ্ন উঠে এসেছে, তাই তা ত্রুটিমুক্ত হওয়াই যুক্তিযুক্ত। 

বিচারপতি নির্দেশ দেন, অভিযুক্ত ওই দশ প্রার্থীর ইন্টারভিউ কখন, কোথায় হয়েছিল এবং কীভাবে মেরিট লিস্ট প্রকাশ করা হয়েছিল, কমিশনকে তা জানাতে হবে। সব সফল প্রার্থীর ঠিকানা দিতে হবে। এছাড়াও বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সমস্ত শূন্যপদে নিয়োগ শেষ হয়ে গিয়েছে নাকি, তাও উল্লেখ করতে হবে। এছাড়াও মামলাকারী এবং সফল প্রার্থীদের ইন্টারভিউ সহ বিভিন্ন স্তরে পাওয়া নম্বরের ব্রেক আপ রিপোর্ট আকারে ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে জমা দিতে বলেছে আদালত। ২১ তারিখ এই মামলার ফের মামলার শুনানি হবে হাইকোর্টে।