ব্রেকিং

6/recent/ticker-posts

Header Ads Widget

‘পকেটে ১০ টাকা নেই, ১০ লাখ টাকার গাড়ি কিনতে এসেছে!’ অপমানিত কৃষক আধ ঘণ্টায় ১০ লাখ টাকা নিয়ে হাজির…এরপর কি হল?

নিউজ ডেস্ক: কর্ণাটকের তুমাকুরুতে, এক কৃষক তার বন্ধুদের সাথে গাড়ির শোরুমে পৌঁছেছিলেন।  তিনি তার স্বপ্নের গাড়ি কিনতে গিয়েছিল।  কিন্তু তার পোশাক দেখে সেলসম্যান (ফার্মার এসইউভি শোরুম) তাকে অপমান করে তাড়িয়ে দেয় বলে অভিযোগ।  তারপর চাষি যা করলেন তা দেখে সেলসম্যান অবাক গেল।  চলুন পুরো ঘটনাটি জেনে নিই..

রিপোর্ট অনুসারে, চিক্কাসন্দ্র হোবলির কৃষক কেম্পেগৌড়া আরএল-এর সাথে এই ঘটনাটি ঘটেছিল, যখন তিনি তার বন্ধুদের সাথে মাহিন্দ্রা শোরুমে একটি এসইউভি কিনতে গিয়েছিলেন।  কেম্পেগৌড়া পেশায় একজন সুপারি চাষি।  সেখানে উপস্থিত সেলসম্যানকে তিনি গাড়ির রেট নিয়ে প্রশ্ন করলে একজন সেলসম্যান পোশাক দেখে তাকে ঠাট্টা করেন বলে অভিযোগ।

কেম্পেগৌড়া দাবি করেছেন যে সেলসম্যান তাকে দেখে বলতে থাকেন, “পকেটে ১০ টাকা নেই। ১০ লাখ টাকার গাড়ি কিনতে এসেছে।” শোরুম ছাড়ার আগে কেম্পেগৌড়া এবং তাঁর বন্ধুরা সেখানকার কর্মচারীদর বলে যায়, “যদি টাকা নিয়ে আসি, তাহলে আজই এই গাড়ির ডেলিভারি দিতে হবে।” 

সংবাদমাধ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়ার কাছে কেম্পেগৌড়া দাবি করেছেন, “তিনি মনে করেছিলেন যে, আমি হয়তো অত টাকা একসঙ্গে আনতে পারব না। কারণ ততক্ষণে সব ব্যাঙ্কও বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।” এরপর ১০ লাখ টাকা ক্যাশ নিয়ে হাজির হয়ে গিয়েছিলেন কেম্পেগৌড়া। আর তাতে শোরুমের সকলেই একপ্রকার থ হয়ে গিয়েছিলেন।

তবে সেই দিন তাঁকে গাড়িটি ডেলিভারি করতে পারেনি ওই শোরুম কতৃপক্ষ। শনি ও রবিবার সরকারি ছুটির দিন বলে শোরুমের কর্মকর্তারা কেবল নিজেদের অসহায়ত্ব প্রকাশ করতে থাকে। এতে গৌড়া ও তাঁর বন্ধুরা আরও রেগে যায়। এই অপমান সহ্য করতে না পেরে পুলিশকে পর্যন্ত ডাকে তাঁরা। শোরুম ছেড়ে যেতেও অস্বীকার করে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপেই বাড়ি যেতে রাজি হয় ওই কৃষক ও তাঁর বন্ধুরা।

কেম্পেগৌড়া দাবি করেছেন, “আমি সেলস এগজ়িকিউটিভ এবং শোরুম কর্তৃপক্ষকে আমাকে এবং আমার বন্ধুদের অপমান করার জন্য লিখিত ভাবে আমাদের কাছে ক্ষমা চাইতে বলেছি। এখন আমি গাড়িটি কেনার প্রতি আগ্রহই হারিয়ে ফেলেছি।”