ব্রেকিং

6/recent/ticker-posts

Header Ads Widget

'পুরুষরা যাতে চিন্তামুক্ত থাকেন তার জন্য এক পেগ মদ খেয়ে ঘুমাতে যেতে দিন’ মহিলাদের পরামর্শ নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রীর

নিউজ ডেস্ক: 'পুরুষদের এক পেগ খেয়ে ঘুমাতে দিন', মহিলাদের এমনই পরামর্শ দিলেন নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী। রাতে পুরুষদের এক পেগ খেয়ে ঘুমোতে দেওয়া উচিত বলে গ্রামের মহিলাদের পরামর্শ দিলেন ছত্তিশগড়ের নারী ও শিশুকল্যাণমন্ত্রী অনিলা ভেদিয়া (Anila Bhediya)। মন্ত্রীর এই বক্তব্য তাঁর দল কংগ্রেসকে সমালোচনার মুখে ফেলেছে। 

দেশে ক্রমেই মদ্যপায়ীর সংখ্যা বাড়ছে। মদ্যপানে দেশের প্রথম স্থানে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ। যোগী রাজ্যের ঠিক পরেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গের নাম। সম্প্রতি অর্থনৈতিক গবেষণা সংস্থা ICRIER এবং আইনি সহায়তা প্রদানকারী সংস্থা PLR চেম্বার যৌথভাবে একটি সমীক্ষা চালায়। যেখানে দেখা যায়, পশ্চিমবঙ্গে প্রায় ১.৪ কোটি লোক মদ্যপান করেন। রাজ্যের তিনটি রাজস্ব আয়ের অন্যতম একটি ক্ষেত্র হল মদ। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে বিশ্বের মধ্যে ভারতে মদের বাজার দ্রুত বাড়ছে। 

অনিলা ভেদিয়ার কথায়, 'পুরুষদের মাঝেমধ্যে এক পেগ মদ খেয়ে ঘুমাতে যেতে দিন।' গ্রামের মহিলাদের দেওয়ার তাঁর এই পরামর্শ কংগ্রেস সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। মন্ত্রী দাবি, 'পুরুষরা যাতে চিন্তামুক্ত থাকতে পারেন, তাই মহিলাদের উচিত রাতে তাঁদের এক পেগ মদ খেয়ে ঘুমাতে যেতে দেওয়া।' মন্ত্রীর এই মন্তব্য ঘুরপথে গার্হস্থ্য হিংসাকে মদত দেওয়া হচ্ছে বলেই মনে করা হচ্ছে। বাড়ির কর্তার অতিরিক্ত মদ্যপানের জেরে চিন্তায় পড়েন সংশ্লিষ্ট মহিলারা।

মহিলা মন্ত্রীর এই মন্তব্যের পরে বিতর্ক শুরু হতেই পিছু হটেন অনিলা ভেদিয়া। সাফাই হিসেবে মন্ত্রী বলেন, 'আমার বক্তব্যের অন্য অর্থ করা হয়েছে। এটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।' তিনি আরও জানান, 'মদ্যপানে আশক্ত পুরুষদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখছিলাম। তাঁদের বোঝাচ্ছিলাম, যাতে অল্প মদ্য পান করেন। বাড়ি এবং সন্তানদের জন্য মেয়েদের অনেক মানসিক চাপ নিতে হয়। আমি বলতে চাইছিলাম, মদের প্রতি আশক্তি খারাপ জিনিস। এই অভ্যাস ত্যাগ করা উচিত।' 

২০২০ সাল থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে দেশে মদের বাজার আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করা হচ্ছে। ২০১৫ -১৬ এবং ২০১৯-১৯ সালের মধ্যে মদের উৎপাদন বাড়ে ২৩.৮ শতাংশ। এই সময় এই ক্ষেত্রে কাজ পেয়েছিলেন প্রায় ১৫ লাখ মানুষ। উৎপাদনের ক্ষেত্রে এগিয়ে থাকলেও মদ রফতানিতে এখনও অনেক দেশের থেকে পিছিয়ে রয়েছে ভারত।