ব্রেকিং

6/recent/ticker-posts

Header Ads Widget

‘বাংলা চাকরি চাই, পিএসসি তুমি জেগে ওঠো’, টুইটারে ট্রেন্ডিং চাকরি প্রার্থীদের দাবি

 

নিউজ ডেস্ক: ‘বাংলা চাকরি চাই, পিএসসি তুমি জেগে ওঠো’, টুইটার ক্যাম্পেন শুরু করেছেন বাংলার চাকরি প্রার্থীরা। ক্লার্কশিপ মেইন ও icds এর পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে দ্রুত নিয়োগের দাবি তুলছেন চাকরি প্রার্থীরা। কিছুদিন আগেই বিধানসভার বাজেট অধিবেশন কক্ষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, “এবার খেলা হবে দিবস পালন করা হবে গ্রামে গ্রামে।” মুখ্যমন্ত্রীর সেই ঘােষণাকে হাতিয়ার করেই পাল্টা টুইটারে ট্রেন্ডিং হচ্ছে চাকরি প্রার্থীদের দাবি। গতকাল ২১ জুলাই সকাল ১১টা থেকে টুইটার ক্যাম্পেন শুরু করেন চাকরি প্রার্থীরা।

চাকরি প্রার্থীদের এই দাবির সঙ্গে গলা মেলালেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। টুইটারে #bengal_wants_job ট্যাগ ব্যাবহার করে দিলীপ ঘোষ লিখেছেন, জীবনধারণের ন্যূনতম অধিকারের মধ্যে অন্যতম হলো সসম্মানে চাকরিতে নিযুক্তি। তৃণমূলের অপশাসনে চাকরি ক্ষেত্রে যেভাবে প্রতিপদে দুর্নীতি ছড়িয়েছে এবং যেভাবে যোগ্যতাকে সম্মান দেওয়া হচ্ছে না, সেটা নাগরিক অধিকারের পরিপন্থী। কেন শূন্য পদে নিয়োগ করছে না সরকার, জবাব দিক।'

একই সঙ্গে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া পাঁচ লক্ষ শূন্যপদের একটা তালিকা তুলে ধরেছেন চাকরি প্রার্থীরা। তাঁদের দাবি, শিক্ষক নিয়োগে ৮৭ হাজার, কলকাতা পুলিশে ৪৫ হজির, পশ্চিমবঙ্গ পুলিশে ৭৫ হাজার, লাইব্রেরিয়ান ৩ হাজার ৭০০, ফায়ার ব্রিগেড ৬ হাজার ৩০০, গ্রুপ ডি ১ লক্ষ ৩৯ হাজার, ফুড ডিপার্টমেন্ট ১২ হাজার, হাসপাতালে ২৩ হাজার পদ বিলুপ্ত করে দেওয়া হয়েছে।

রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগ অনিয়মিত হয়ে পড়েছে। নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বারে বারে দুর্নীতির অভিযোগ উঠছে। হয়েছে একাধিক মামলা। তাছাড়া বিভিন্ন দপ্তরে প্রচুর শূন্যপদ খালি পড়ে রয়েছে। যদিও নিয়োগ হচ্ছে না। বিরােধীরা অভিযােগ করছে তৃণমূলের জমানায় স্থায়ী পদে স্থায়ী নিয়ােগ হচ্ছে না। কিছু ক্ষেত্রে ফিক্সড পে-র ভিত্তিতে অস্থায়ী ভিত্তিতে লােক নেওয়া হচ্ছে। বেকারদের অবস্থা শোচনীয় হয়ে পড়ছে। 

যদিও তৃণমূলের দাবি, বাংলা কর্মসংস্থানের দিক দিয়ে ভারতে এক নম্বরে রয়েছে। যখন গোটা দেশেই বেকারত্ব বাড়ছে, তখন বাংলায় বেকারত্ব ক্রমশ কমছে। কর্মসংস্থানের নতুন দিগন্ত বাংলায় উন্মােচিত হয়েছে।