Breaking News
Home / সম্পাদকীয় / হিন্দু সন্ত্রাস, মুসলিম সন্ত্রাস: আদৌ কি কোনো ধর্মের সঙ্গে সন্ত্রাস কথাটি জুড়ে দেওয়া যায়?

হিন্দু সন্ত্রাস, মুসলিম সন্ত্রাস: আদৌ কি কোনো ধর্মের সঙ্গে সন্ত্রাস কথাটি জুড়ে দেওয়া যায়?

বিশ্ব বার্তা নিউজ পোর্টাল: বেশ কিছুদিন থেকেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সহ অন্যন্য বিজেপি নেতারা বলছেন হিন্দু কখনো সন্ত্রাসী হয় না। কিন্তু সন্ত্রাসের সঙ্গে ইসলাম জুড়ে দিতে তারা সবসময় আসরে নেমে পড়েন। এদিকে অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর বলেছেন প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর যদি হিন্দুত্বের মুখ হয় তবে হিন্দু সন্ত্রাসীও আছে বলতে হবে। আরো একধাপ এগিয়ে দক্ষিণের সুপারস্টার কমল হাসান বলেছেন শান্তির দূত মহাত্মা গান্ধীকে যিনি গুলি করে মেরেছিল তিনি একজন হিন্দু, নাম নাথুরাম গডসে। তাই স্বাধীন ভারতের প্রথম সন্ত্রাসী হল একজন হিন্দু। 

এখন প্রশ্ন হল কোনো ধর্মের সঙ্গে কি আদৌ সন্ত্রাস কথাটি জুড়ে দেওয়া যায়? ধর্ম কি কখনও সন্ত্রাসকে সমর্থন করে? না সন্ত্রাসীরা নিজেকে বাঁচানোর জন্য সুবিধামত কোনো এক ধর্মকে আশ্রয় করে!

তাই, হিন্দু সন্ত্রাসের অস্তিত্বকে অস্বীকার করে যে সমস্ত মানুষ মুসলিম সন্ত্রাসের অস্তিত্ব কে স্বীকার করেন। তাঁরা হলেন উগ্র সাম্প্রদায়িক এবং অশিক্ষিত। অপরদিকে উল্টোটাও সত্যি। তাঁরা যদি মানেন মুসলিমরা সন্ত্রাসী, তবে আরেক শ্রেণীর মানুষের ধারণা অনুযায়ী হিন্দুরাও সন্ত্রাসী। দুই শ্রেণীর মানুষই গর্দভ এবং মাথামোটা। সন্ত্রাসের আভিধানিক অর্থ হলো অতিশয় ভয়, রাজনৈতিক বা ধর্মীয় ক্ষমতা লাভের জন্য হত্যা বা নির্যাতন অর্থাৎ ব্যক্তিগত অথবা দলীয় আধিপত্য বিস্তারের জন্য পেশী শক্তির নগ্ন প্রয়োগ দ্বারা ,মানুষকে হুমকি ,ভীতি প্রদর্শন, মারধর, আগ্নেয়অস্ত্র এর আস্ফালন ইত্যাদির সমষ্টিকেই সন্ত্রাস (TERROR) বলে। এই অনুযায়ী কোনও হিন্দু নামধারী ব্যক্তি বা দল যখন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করছে বা মানুষ হত্যা করছে তখন সেই ব্যক্তি বা দল কে সন্ত্রাসী বলবো, হিন্দু ধর্ম কে নয়। তেমনি মুসলিম নামধারী ব্যক্তি বা দল যদি সন্ত্রাসমূলক কর্মকাণ্ড করেন তবে সেই ব্যক্তি বা দল কে সন্ত্রাসী বলব, মুসলিম ধর্মকে নয়। এটা বোঝা প্রয়োজন কোনও ধর্ম মানুষকে হিংসা বা সন্ত্রাস শেখায় না, মানুষ ধর্ম কে ভুলবাখ্যা করে নিজের সুবিধার জন্য ব্যবহার করে। কোনও ধর্মেই হিংসার কোনও অস্তিত্ব নেই। ওই অশিক্ষিত মানুষ গুলোকে বলছি যাঁরা সন্ত্রাস কে ধর্মের সাথে ঘুলিয়ে ফেলেন, তাঁরা একটু ধর্ম গ্রন্থ পড়বেন, তাঁর পর মুসলিম টেরোরিস্ট, হিন্দু টেরোরিস্ট কথা গুলো বলবেন। দেশে কিছু নাম সর্বস্ব ধার্মিক আছে, কিন্তু তাঁদের ধর্ম নেই! ধর্ম পালন মানে শুধু নামাজ পড়া বা না বুঝে কোরান পাঠ নয়, বা অন্ধের মতো মন্ত্র পাঠ বা পূঁজা অর্চনা নয়। ধর্ম মানে নিজের বিবেক কে জাগ্রত রাখা, সচেতন ভাবে আদর্শকে অনুসরণ করা এবং সঠিক জ্ঞান অর্জন করে মানুষকে যথাসাধ্য উপকার করা।

Check Also

সাজানো ভণ্ডামি, পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের সঙ্গে আপনি বর্বরতা করেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে মুকুল রায়

বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যের শাসকদল জোর দিয়েছে জন সংযোগ কর্মসূচি। পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে দিদিকে বলো কর্মসূচি। এই কর্মসূচি উপলক্ষেই গত বুধবার দিঘার দত্তপুরে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। সেখানে দীঘর উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু প্রকল্প ঘোষণা করেন। এরপর বাড়ি বাড়ি ঢুকে সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগ শোনেন তিনি। যেতে যেতেই রাস্তার পাশে একটি চায়ের দোকানে ঢুকে নিজে হাতে চা বানান মুখ্যমন্ত্রী। এরপর তা পরিবেশনও করেন। এই ঘটনাকে জীবনের ছোটো ছোটো আনন্দদায়ক মুহূর্ত হিসাবেই অভিহিত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পদোন্নতির মাধ্যমে শিক্ষক নেওয়া হলে, আদৌ কি যোগ্য প্রার্থীরা প্রধান শিক্ষক হতে পারবেন? উঠছে প্রশ্ন!

এসএসসির মাধ্যমে সহ শিক্ষক নিয়োগে বারে বারে উঠেছে অভিযোগ। কখনো বা এনসিটির রুলস না মানা আবার কখনো বা যোগ্য প্রার্থীকে বাদ দিয়ে অযোগ্য প্রার্থীকে মেধা তালিকায় জায়গা করে দেওয়া। শুধুই যে সহ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এমন অভিযোগ আছে তা নয়, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও উঠেছে একাধিক অভিযোগ। এসএসসির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছেও প্রচুর। ফলে রাজ্যের স্কুল গুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ বারেবারে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে।

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত: বিজেপির শরিক নেতা

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত

দীঘায় চলবে সি প্লেন, তৈরি হবে পুরীর মত জগন্নাথ দেবের মন্দির: মমতা ব্যানার্জী

দীঘা

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি