Breaking News
Home / পলিটিক্স / সক্রিয় রাজনৈতিক জীবন কি শেষ হতে চলেছে লৌহপুরুষ লালকৃষ্ণ আদবানির?

সক্রিয় রাজনৈতিক জীবন কি শেষ হতে চলেছে লৌহপুরুষ লালকৃষ্ণ আদবানির?

বিশ্ব বার্তা নিউজ পোর্টাল: লৌহপুরুষ তথা প্রাক্তন উপ-প্রধানমন্ত্রী লালকৃষ্ণ আডবানির সক্রিয় নির্বাচনী রাজনীতিতে অংশগ্রহণ কার্যত শেষ বলেই মনে হচ্ছে, কারণ 2019 সালের লোকসভা নির্বাচনের জন্য বিজেপি তাদের দলীয় প্রার্থীদের প্রথম তালিকায় আদবানিকে রাখেনি। গতকাল বিজেপি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের জন্য 184 জন প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে।

এতদিন গুজরাটের গান্ধীনগরে লৌহপুরুষ লালকৃষ্ণ আডবানি লোকসভা ভোটে দাঁড়াতেন। বিজেপি এবার গান্ধীনগর থেকে সভাপতি অমিত শাহকে ভোটে দাঁড় করিয়েছে। 2012 সালে রাজ্যসভার সদস্য হয়ে ওঠার আগে আহমেদাবাদে অবস্থিত নারানপুরা বিধানসভা আসন থেকে নির্বাচনে জয়ী হন তিনি, যেটা গান্ধীনগর লোকসভা কেন্দ্রে পড়ে।

বিজেপির রাজ্য ইউনিট দাবি করেছিল, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বা অমিত শাহ আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে গুজরাট রাজ্য থেকেই লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হবে। শাহ, গান্ধীনগর কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে সেই দাবি পূরণ করলেন।

তবে বিজেপি যেভাবে আডবানির মত বলিষ্ঠ নেতাকে তার নিজের কেন্দ্র থেকে কিনারা করে দিল তা অনেকেরই মনঃপুত হচ্ছে না। এই বিষয় নিয়ে কংগ্রেস, বিজেপিকে তীব্র সমালোচনা করছে। তারা বলছে যে দল তাদের সিনিয়র নেতাকে সম্মান দিতে জানেনা, তারা কি করে দেশকে ভালো করবে?

1941 সালে আরএসএসের সদস্য গ্রহণ করেছিলেন লালকৃষ্ণ আদবানি। সেইসময় থেকেই সক্রিয় রাজনীতিতে অংশ গ্রহণ করেছিলেন তিনি। তারপর 1951 সালে জনসংঘের সদস্য হয়েছিলেন তিনি। সেই থেকেই জাতীয় রাজনীতির অংশ হয়ে পড়েন তিনি। পরে চলে আসেন দিল্লিতে। বিজেপির সত্যিকারের উত্থান তাঁর হাত দিয়েই হয়েছিল। আদবানির রথযাত্রাতো সবারই মনে থাকার কথা। এবার সেই আদবানিকে সরিয়ে দিয়েই বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ ভোটে লড়বেন গান্ধীনগর আসনে থেকে। 

Check Also

সাজানো ভণ্ডামি, পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের সঙ্গে আপনি বর্বরতা করেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে মুকুল রায়

বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যের শাসকদল জোর দিয়েছে জন সংযোগ কর্মসূচি। পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে দিদিকে বলো কর্মসূচি। এই কর্মসূচি উপলক্ষেই গত বুধবার দিঘার দত্তপুরে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। সেখানে দীঘর উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু প্রকল্প ঘোষণা করেন। এরপর বাড়ি বাড়ি ঢুকে সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগ শোনেন তিনি। যেতে যেতেই রাস্তার পাশে একটি চায়ের দোকানে ঢুকে নিজে হাতে চা বানান মুখ্যমন্ত্রী। এরপর তা পরিবেশনও করেন। এই ঘটনাকে জীবনের ছোটো ছোটো আনন্দদায়ক মুহূর্ত হিসাবেই অভিহিত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পদোন্নতির মাধ্যমে শিক্ষক নেওয়া হলে, আদৌ কি যোগ্য প্রার্থীরা প্রধান শিক্ষক হতে পারবেন? উঠছে প্রশ্ন!

এসএসসির মাধ্যমে সহ শিক্ষক নিয়োগে বারে বারে উঠেছে অভিযোগ। কখনো বা এনসিটির রুলস না মানা আবার কখনো বা যোগ্য প্রার্থীকে বাদ দিয়ে অযোগ্য প্রার্থীকে মেধা তালিকায় জায়গা করে দেওয়া। শুধুই যে সহ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এমন অভিযোগ আছে তা নয়, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও উঠেছে একাধিক অভিযোগ। এসএসসির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছেও প্রচুর। ফলে রাজ্যের স্কুল গুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ বারেবারে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে।

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত: বিজেপির শরিক নেতা

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত

দীঘায় চলবে সি প্লেন, তৈরি হবে পুরীর মত জগন্নাথ দেবের মন্দির: মমতা ব্যানার্জী

দীঘা

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি