Breaking News
Home / ধর্ম / বৃদ্ধ-তরুণ ‘লাওৎসের’ সহজ পথ: এক অনন্যসাধারণ জীবন দর্শন!

বৃদ্ধ-তরুণ ‘লাওৎসের’ সহজ পথ: এক অনন্যসাধারণ জীবন দর্শন!

অর্ণব পাল সন্তু: প্রায় আড়াই হাজার বছর পূর্বে চীনে লাওৎসের আবির্ভাব। যদিও আজ নিশ্চিত ভাবে বলা যায় না কোন সালে কোন মাসে কোনখানে তিনি জন্মেছিলেন। মনে করা হয় তিনি কনফুসিয়াস, বুদ্ধ, জেরয়াষ্টার, মহাবীর, পিথাগোরাস এবং প্রাক-সক্রেটিসক দার্শনিকদের বেশ কয়েকজনের সমসাময়িক ছিলেন। ঐতিহাসিকেরা একাধিক লাও ৎস এর অস্তিত্বে সম্পর্কে মতান্তর প্রকাশ করেছেন। লাওৎস শব্দের অর্থটা বেশ মজার, যা হলো ‘বৃদ্ধ-তরুণ’। লাওৎসে কে নিয়ে নানা রকম গল্প প্রচলিত আছে। একটি গল্প বলে যে লাওজি তার জীবনের ১৬০ বছর বয়সের আগ পর্যন্ত অরণ্যে বাস করতেন। অনেকগুলি গল্পে লাওজি বুদ্ধকে শেখানোর জন্য ভারতে ভ্রমণ করার কথা বলে। কেউ কেউ বলে যে তিনি বুদ্ধ ছিলেন।

চীনা কিংবদন্তী অনুসারে লাও ঝৌয়ের রাজদরবারে পড়াশোনা করেছিলেন এবং প্রচুর সংখ্যক লোককে আকৃষ্ট করেছিলেন।
তাঁর মৃত্যুর পরে তাঁর বেশিরভাগ কাজ সমগ্র ইতিহাস জুড়ে স্বৈরাচারবিরোধী প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করেছিল। কিছু আধুনিক রাজনীতিবিদ মনে করেন যে লাওজিই প্রথম স্বাধীনতাবাদী, তিনি বিশ্বাস করতেন জনগনকে তাদের ইচ্ছামত থাকতে দেয়া উচিত। তিনি তিব্বতে চলে যাওয়ার জন্য চীন ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন এবং সীমান্ত অতিক্রম করার সময় শুল্ক কর্মকর্তা ইয়েন-হাই বিজ্ঞ ব্যক্তিটিকে চিনতে পেরে তাঁকে সত্য এবং জ্ঞান সম্পর্কে তাঁর সাথে কথা বলতে বলেন। এই কথোপকথন চলেছিল এক বছর ধরে। পরে সেই শুল্ক কর্মকর্তার জন্য একটি উপহার এলো: ‘তাও-তে-কিং’। আসলেই সহজ পথ, সরল। সেই আড়াইহাজার বছর পূর্বে এত জটিলতা পূর্ণ বিষয় গুলোকে এত সহজ ভাবে বলেছেন, সেটা পড়লেই বিষ্ময়ে অভিভূত হই।

আবার অনেক প্রচলিত উপদেশ, কথকতা পা্ওয়া যায় তার রচনায়। তাহলে এসব জ্ঞানগর্ভ উপদেশ কি সেই হাজার হাজার বছর আগেই লাও ৎসে বলে গেছেন? লাও ৎসে ৩০ অনুচ্ছেদে বলেছেন ‘প্রতিটি শক্তির আছে বিপরীত প্রতিক্রিয়া,হিংসা হিংসাকে আমন্ত্রন জানায়।’ প্রত্যেক ক্রিয়ার বিপরীতমুখী প্রতিক্রিয়ার সুত্রটি লাও ৎসে আড়াইহাজার বছর পূবেই জানিয়ে গেছেন। আর মাত্র সেদিন নিউটন আমাদেরকে জানালেন। ৮১ টি অনুচ্ছেদে বিভক্ত ৫০০০ চীনা অক্ষরের সমন্বয়ে রচিত এ গ্রন্থটি। গ্রন্থটিকে কৌতুহলবোধক স্ববিরোধিতামুলক অনুষঙ্গ (প্যারাডক্স) আবিস্কার করা যায়। কিন্তু প্রকৃত পক্ষে মানসিক ভারসাম্য, চিত্তের সুস্থিরতা ও একটি সমাহিত চিত্ত রচনা করাই যেন তাও দর্শনের মুল কথা।

রহস্য আর প্রকাশ্য উৎস তো এক
এই উৎসের নাম অন্ধকার।

থাকা আর না থাকা একে অন্যকে সৃষ্টি করে
জটিলতা আর সহজতা একে অপরকে সমর্থন করে
হ্রস্ব্য আর দীর্ঘ তো একে অপরকে চিহ্নিত করে
উঁচু এবং নিচু একে অপরকে নির্ভর করে
পূর্ব এবং পর একে অপরকে অনুসরণ করে।

যদি মহাপুরুষকে অতিরিক্ত বড় কর
সাধারন-মানুষ হয়ে পড়ে অসহায় রকম ছোট
যখন সম্পদের অতিমুল্য প্রচার কর
লোকে চুরি করতে প্রলুব্ধ হয়।

অর্থ আর নিরাপত্তার জন্য যদি বেশি বেশি পাগল হও
দেখবে তোমার হৃদয়টিকেই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।
যদি গ্রাস করে জনরুচি
হয়ে যাবে তুমি জনতার ক্রীতদাস।

সাফল্য ব্যর্থতার মতোই ভয়াবহ
আশাও ভয়ের মতো ভয়ংকর।

তাকাও দেখা যাবে না কিছুই
শোনো কিছুই যাবে না শোনা
পৌছাও কখনো গন্তব্য পাবে না।

অশান্তিকে গলা টিপে মেরে ফেলো না
এরও আছে পূর্ণতা পাবার অধিকার।

জীবন যেভাবে আসে
গ্রহন করো একে সহজ আনন্দে
মৃত্যু যেভাবে আসুক
গ্রহন করো একে সহজিয়া ছন্দে।

বিলুপ্ত হলে বুদ্ধি জন্ম নেয় চালাকি
পিছু হটে জ্ঞান
বিনম্র হলে তাও এ জন্ম নেয় মহত্ত্ব আর সৌন্দর্য।
সংসারে না থাকলে শান্তি অধ:পাতে যায় সন্তান
তবে দেশ ডুবে গেলে নৈরাজ্য জন্ম নেয় দেশ প্রেমে।

ছুঁড়ে ফেলো
প্রজ্ঞা
ন্যায়
নৈতিকতা
দেখবে মানুষ সুখী
দেখবে মানুষেরা ঠিক কাজটি করছে নিজে নিজেই
বন্ধ করো মুনাফার কারবার
দেখবে দেশে চোরের অস্তিত্বই নেই।

চিন্তাটাকেই থামিয়ে দাও
দেখবে কোন সমস্যা নেই।
সাফল্য আর ব্যর্থতা খুব কি আলাদা কিছু?

যদি হতে চা্ও সমগ্র
খন্ড খন্ড কর নিজেকে
যদি হতে চাও ঋজু
নিজেকে বক্র কর
যদি হতে চা্ও পুর্ণাঙ্গ
নিজেকে অপূর্ণ কর
যদি পুনর্জন্ম চাও
আগে বরণ কর মৃত্যু
ত্যাগী হলে পরিত্যাগ কর পুরোটাই।

পুরুষকে জানো
ধারন কর নারীত্ব।
পৃথিবীকে কাঁধে নাও
তোমাকে কখনোই ছেড়ে যাবে না তাও
আর তুমি হবে ছোট্ট শিশুর মতো কোমল।

প্রতিটি শক্তির আছে বিপরীত প্রতিক্রিয়া
হিংসা হিংসাকে আমন্ত্রন জানায়।

অন্যকে জানাকে বলে বুদ্ধি
নিজেকে জানা মানে প্রজ্ঞা
অন্যকে শাসন করা মানে ক্ষমতা
নিজেকে শাসন করলে দেখা মেলে প্রকৃত শক্তির।

তা্ও-এ লুপ্ত হলে প্রথমে আসে ভালো
ভালো লুপ্ত হলে আসে নৈতিকতা
নৈতিকতা লুপ্ত হলে আসে প্রথা
প্রথা হচ্ছে সত্যের আবর্জনা
সকল সংঘাতের সুত্রধর।

প্রাচীন গুরু মানুষকে শিক্ষা দিতে চেষ্টা করেন না
তিনি বরং শিক্ষা দেন কেমন করে না জানাতে হয়।
মানুষ যখন বুঝতে শুরু করে , সে সবই জানে
তাকে পথ দেখানো মুশকিল।

সেরা নেতা
অনুসরণ করবে জনতার প্রকৃত অভিলাষ।

না জানা মানে সত্য জ্ঞান
জানার ভান করা একটি অসুখ
প্রথমেই অনুভব কর এটা একটা অসুখ
তারপর তুমি এগুতে পারবে স্বাস্থ্যের পথে।

জনতার লাভের জন্য যদি কাজ কর তবে
তাদের বিশ্বাস কর-
তাদের থাকতে দাও নিজের মতো।

ব্যর্থতাও একটি সুযোগ
তুমি যদি কাউকে দায়ী করতে শুরু কর
তবে তোমার দোষারোপের অভ্যাস কখনো যাবে না।

যদি একটি দেশ ভালো মতো শাসিত হয়
এর অধিবাসীরা হয় সংগ্রামশীল।

সত্য বাক্য অলংকারময় হয় না
অলংকারসর্বস্ব বাক্য সত্য নয়
জ্ঞানী ব্যক্তি তার কথাকে প্রমাণ করার চেষ্টা করেন না
যারা কথার প্রমাণ দিতে চায় তারা জ্ঞানী নয়।

পাঠক তাও দর্শন পড়ে কি মনে হচ্ছে তাও, জীবন-বিরোধী? নিশ্চলতা তৈরী করাই কি তাও দর্শনের কাজ? তাও কি একটি উদ্যোগহীন, প্রজ্ঞাহীন, অভিলাষহীন, মৃত্যুগন্ধী জীবনবোধ? মনে হতেই পারে। কিন্তু বাস্তবে তিনি জীবনের পাশবিকতাকে থেকে মুক্ত হবার আহবান জানিয়েছেন, জীবন থেকে পলায়নের মন্ত্র দেননি।

এই চীনা চিন্তকের মৃত্যুর পরে গভীর প্রভাব পরে চীনা দর্শনে। তাঁর দর্শন যদিও কোনও ধর্মীয় চরিত্র ধারণ করে না, তবুও একসময় ‘তাওবাদ’ নামে একটি ধর্মে রূপান্তরিত হয়েছিল। এই চীনা চিন্তকের মৃত্যুর বিষয়ে জানা যায়নি, কিংবদন্তী বলে তিনি ২০০ বছর বেঁচে ছিলেন।

Check Also

‘আমি মনে করি না যে শিক্ষকরা তাদের যা করেন তার জন্য তাঁরা যথেষ্ট বেতন পান’

নিউজ ডেস্ক: নয় বছর বয়সী ছেলেরা সাধারণত তাদের জন্মদিনের অর্থ খেলনা বা ভিডিও গেমগুলিতে ব্যয় …

একই সঙ্গে চারজন ভারতীয় বংশোদ্ভূত জয়ী হলেন মার্কিন মুলুকে, সৃষ্টি হল ইতিহাস!

নিউজ ডেস্ক: জয়জয়কার ভারতীয়দের! একই সঙ্গে চার জন ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন মুলুকে প্রাদেশিক ও স্থানীয় …

WBCS 2020: কিভাবে প্রস্তুতি নেবেন? কি বই পড়বেন? জেনে রাখুন বিস্তারিত!

নিউজ ডেস্ক: WBCS অফিসার হওয়া যেন রাজ্যের বেশির ভাগ চাকুরী প্রার্থীদের কাছে স্বপ্ন। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের …

ন্যায্য বেতন সহ কয়েক দফা দাবি নিয়ে আজ বড় শিক্ষক বিদ্রোহ দেখতে চলেছে রাজ্য বাসী!

নিউজ ডেস্ক: আবার পথে নামতে চলছেন রাজ্যের কয়েক হাজার প্রাথমিক শিক্ষক-শিক্ষিকারা। আজ ‘কোলকাতা চলোর’ ডাক …

বড় ধাক্কা বিজেপির, মহারাষ্ট্রে সরকার গড়বে তারাই জানিয়ে দিল শিবসেনা!

নিউজ ডেস্ক: মহারাষ্ট্রে সরকার গড়বে তাঁরাই, জানিয়ে দিল শিবসেনা। ফলে মারাঠা ভূমিতে খুব বড় ধাক্কা …

বাসন্তী-রঙা শাড়ি পরে, মাথায় ঘোমটা দিয়ে, দেবী-বরণ করেন পুরুষেরা, ২২৩ বছর ধরে চলছে পরম্পরা!

নিউজ ডেস্ক: রীতি মেনে এখানে সাতবার প্রতিমাকে প্রদক্ষিণ করা হয়। কারও হাতে জলের পাত্র। কারও …

দিতে হবে না কোনো লিখিত পরীক্ষা, কেবল পদোন্নতির মাধ্যমেই হবে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ!

নিউজ ডেস্ক: আর নয় লিখিত পরীক্ষা, এবার নির্দিষ্ট কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে পদোন্নতির মাধ্যমেই হওয়া যাবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.