Breaking News
Home / উত্তর বঙ্গ / ‘বিরলের মধ্যে বিরলতম’ ঘটনা’, ৩ কাঠমিস্ত্রীকে মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ দিল শিলুগুড়ি আদালত

‘বিরলের মধ্যে বিরলতম’ ঘটনা’, ৩ কাঠমিস্ত্রীকে মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ দিল শিলুগুড়ি আদালত

বিশ্ব বার্তা নিউজ পোর্টাল: বিরলের মধ্যে বিরলতম ঘটনা, একি সঙ্গে মৃত্যুদন্ড দেওয়া হল তিন কাঠমিস্ত্রীকে। ঘটনাটি ২০১৫ সালের ১৪ই সেপ্টেম্বরের। সহদেব বর্মন, চিরঞ্জিত মোদক, দীপু সুত্রধর নামে তিন কাঠমিস্ত্রী, অগাস্ট মাসে প্রদীপ বর্ধনের বাড়িতে কাঠের কাজ করেছিল। তখনই তৈরি হয়েছিল ব্লুপ্রিন্ট। সেপ্টেম্বরে ডাকাতির উদ্দেশ্যে প্রদীপ বর্ধনের বাড়িতে চড়াও হয় ওই তিন কাঠমিস্ত্রী। বাধা পেতেই প্রদীপ বর্ধন, প্রদীপ বর্ধনের স্ত্রী ও তার বছর ২৪-এর ছেলেকে শ্বাসরোধ ও কুপিয়ে খুন করে তারা। শেষ হয়ে যায় গোটা একটা পরিবার।

চার বছর আগের সেই মামলার রায় দিল শিলুগুড়ি আদালত। বিরলের মধ্যে বিরলতম উল্লেখ করে অভিযুক্তদের মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ দিল আদালত। 

এই ঘটনায় পরে মাটিগাড়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন প্রদীপ বর্ধন মেয়ে রেশমি সেন। ঘটনার তিন দিন পর মৃত প্রদীপ বর্ধনের মোবাইল ট্র্যাক করে সহদেব বর্মনকে গ্রেফতার করে পুলিস। এরপর ধৃত সহদেবকে জেরা করে চিরঞ্জিত মোদক এবং দীপু সুত্রধরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। চার বছর ধরে চলছিল মামলা। বিচার প্রক্রিয়ার শেষে তিন অভিযুক্তকেই মৃত্যুদন্ডের নির্দেশ দিল শিলিগুড়ি আদালত।

রায় দিতে গিয়ে বিচারক জানিয়েছেন, ঘটনাটি বিরলের মধ্যে বিরলতম। ফলে তিন জনকেই মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল। আদালতের এই রায়ে খুশি মৃতের পরিবার। মামলাটিতে মোট আঠাশ জন সাক্ষী ছিল। 

Check Also

সাজানো ভণ্ডামি, পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের সঙ্গে আপনি বর্বরতা করেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে মুকুল রায়

বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যের শাসকদল জোর দিয়েছে জন সংযোগ কর্মসূচি। পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে দিদিকে বলো কর্মসূচি। এই কর্মসূচি উপলক্ষেই গত বুধবার দিঘার দত্তপুরে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। সেখানে দীঘর উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু প্রকল্প ঘোষণা করেন। এরপর বাড়ি বাড়ি ঢুকে সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগ শোনেন তিনি। যেতে যেতেই রাস্তার পাশে একটি চায়ের দোকানে ঢুকে নিজে হাতে চা বানান মুখ্যমন্ত্রী। এরপর তা পরিবেশনও করেন। এই ঘটনাকে জীবনের ছোটো ছোটো আনন্দদায়ক মুহূর্ত হিসাবেই অভিহিত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পদোন্নতির মাধ্যমে শিক্ষক নেওয়া হলে, আদৌ কি যোগ্য প্রার্থীরা প্রধান শিক্ষক হতে পারবেন? উঠছে প্রশ্ন!

এসএসসির মাধ্যমে সহ শিক্ষক নিয়োগে বারে বারে উঠেছে অভিযোগ। কখনো বা এনসিটির রুলস না মানা আবার কখনো বা যোগ্য প্রার্থীকে বাদ দিয়ে অযোগ্য প্রার্থীকে মেধা তালিকায় জায়গা করে দেওয়া। শুধুই যে সহ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এমন অভিযোগ আছে তা নয়, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও উঠেছে একাধিক অভিযোগ। এসএসসির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছেও প্রচুর। ফলে রাজ্যের স্কুল গুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ বারেবারে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে।

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত: বিজেপির শরিক নেতা

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত

দীঘায় চলবে সি প্লেন, তৈরি হবে পুরীর মত জগন্নাথ দেবের মন্দির: মমতা ব্যানার্জী

দীঘা

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি