Breaking News
Home / সাহিত্য / বিগত 10 বছরের পিএইচডি থিসিসের মান পর্যালোচনা করবে ইউজিসি

বিগত 10 বছরের পিএইচডি থিসিসের মান পর্যালোচনা করবে ইউজিসি

বিশ্ব বার্তা নিউজ পোর্টাল: বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) দেশ ব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে গত 10 বছরে যতজন পিএইচডি আওয়ার্ড পেয়েছেন তাঁদের থিসিসের মান পর্যালোচনা করার পরিকল্পনা করছে। সাধারণত থিসিস জমা দেওয়ার পরেই কোনো একজনকে ডক্টরেট ডিগ্রী দেওয়া হয়। ভরতে গবেষণার মান আন্তর্জাতিক স্টান্ডার্ডের তুলনায় যথেষ্ট পিছিয়ে থাকা এবং কিছু ক্ষেত্রে থিসিসের মৌলিকত্ব এবং গুণগত মান সম্বন্ধে বিভিন্ন মহলের দ্বারা উত্থাপিত উদ্বেগের ফলে এই পরিকল্পনা নিয়েছে ইউজিসি।

উচ্চ শিক্ষা নিয়ন্ত্রকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন “ইউজিসি ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে প্রাপ্ত পিএইচডি থিসিসের গুণমান যাচাই করার পরিকল্পনা নিয়েছে। এই পরিকল্পনার অংশ হিসাবে বিভিন্ন কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়, স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়, স্টেট বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন ডিমড শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির নানা ডিসিপ্লিনে গত 10 বছরের ভূষিত পিএইচডি থিসিসের মান যাচাই করা হবে।”

এই মর্মে কমিশন বিভিন্ন আগ্রহী ব্যক্তিবর্গ বা গ্রুপকে ছয় মাস ধরে থিসিস অধ্যযন ও যাচাই কার্য পরিচালনা করার প্রস্তাব পেশ করেছে। আগ্রহী ব্যক্তি বা গ্রুপকে তাঁদের প্রপোজাল জমা দিতে বলা হয়েছে।

ইউজিসি সদস্য সুষমা যাদব বলেন “শেষ দশকে ভারতে উচ্চশিক্ষার আয়তন অনেকটাই বেড়েছে। কিন্তু উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্টানগুলির মান তেমন বৃদ্ধি পাইনি। আমাদের আউটপুট [ভারতীয় গবেষণা] বেশ বড়, কিন্তু মানের দিক থেকে যথেষ্টই পিছিয়ে। বিশ্বব্যাপী র‍্যাঙ্কিংয়ে আমরা অনেকটাই পিছিয়ে।” 

প্রফেসর যাদব, যিনি রাজনৈতিক বিজ্ঞান ও জন প্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক এবং সম্প্রতি ভগত ফুল সিং মহিলা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন, তিনি আরো বলেন “অনেক পিএইচডি স্কলার্সরা জানেই না তারা কী কাজ করছে! আপনি যদি মাত্র 15-20 টি বই নিয়ে বসেন এবং তারপর কিছু লেখেন, তবে এটি কোন গবেষণা নয়। মূল চিন্তাভাবনা ও উদ্ভাবন ব্যতীত কখনো ভালো মানের গবেষণা সম্ভব নয়।” তবে নিম্ন মানের গবেষণার জন্য তিনি উপযুক্ত পরিকাঠামোর অভাব, প্রয়োজনীয় শিক্ষকের অভাব এবং কিছু ক্ষেত্রে ভালো শিক্ষকের অভাবকেও দায়ী করেন তিনি।  

বেশ কিছুদিন ধরেই গবেষণার মান নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছে ইউজিসি। কোন জার্নালে গবেষণা ধর্মী পেপার প্রকাশিত হবে তার লিস্ট কিছুদিন আগেই বেঁধে দিয়েছিল ইউজিসি। যদিও সেটা তেমন ফলপ্রসূ হয়নি। এখন দেখার ইউজিসির এই উদ্যোগ শেষ পর্যন্ত কতটা সফলতা পাই। 

Check Also

সাজানো ভণ্ডামি, পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের সঙ্গে আপনি বর্বরতা করেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে মুকুল রায়

বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যের শাসকদল জোর দিয়েছে জন সংযোগ কর্মসূচি। পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে দিদিকে বলো কর্মসূচি। এই কর্মসূচি উপলক্ষেই গত বুধবার দিঘার দত্তপুরে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। সেখানে দীঘর উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু প্রকল্প ঘোষণা করেন। এরপর বাড়ি বাড়ি ঢুকে সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগ শোনেন তিনি। যেতে যেতেই রাস্তার পাশে একটি চায়ের দোকানে ঢুকে নিজে হাতে চা বানান মুখ্যমন্ত্রী। এরপর তা পরিবেশনও করেন। এই ঘটনাকে জীবনের ছোটো ছোটো আনন্দদায়ক মুহূর্ত হিসাবেই অভিহিত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পদোন্নতির মাধ্যমে শিক্ষক নেওয়া হলে, আদৌ কি যোগ্য প্রার্থীরা প্রধান শিক্ষক হতে পারবেন? উঠছে প্রশ্ন!

এসএসসির মাধ্যমে সহ শিক্ষক নিয়োগে বারে বারে উঠেছে অভিযোগ। কখনো বা এনসিটির রুলস না মানা আবার কখনো বা যোগ্য প্রার্থীকে বাদ দিয়ে অযোগ্য প্রার্থীকে মেধা তালিকায় জায়গা করে দেওয়া। শুধুই যে সহ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এমন অভিযোগ আছে তা নয়, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও উঠেছে একাধিক অভিযোগ। এসএসসির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছেও প্রচুর। ফলে রাজ্যের স্কুল গুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ বারেবারে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে।

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত: বিজেপির শরিক নেতা

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত

দীঘায় চলবে সি প্লেন, তৈরি হবে পুরীর মত জগন্নাথ দেবের মন্দির: মমতা ব্যানার্জী

দীঘা

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি