Breaking News
Home / পশ্চিমবঙ্গ / বাঙালি মুসলিম জাতির সমস্যা ও সমাধানের উপায়

বাঙালি মুসলিম জাতির সমস্যা ও সমাধানের উপায়

শিক্ষিত সচেতন জনগোষ্ঠী ছাড়া কোনো সম্প্রদায়ের এগিয়ে যাওয়া সম্ভব নয় । পশ্চিমবঙ্গের পিছিয়ে পড়া মুসলিম জনগোষ্ঠীর ক্ষেত্রে একথা আরও বেশি করে প্রযোজ্য। প্রতিটি পরিবারের প্রতিটি ছেলেমেয়েকে ভালোভাবে শিক্ষার আঙিনায় নিয়ে আসতে হবে। যুগোপযোগী আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলতে হবে। মিশন আন্দোলনের মাধ্যমে একটা শুভ প্রচেষ্টা শুরু হয়েছে সত্য । কিন্তু মোট জনসংখ্যার নিরিখে তা এখনও পর্যাপ্ত হয়ে ওঠেনি। এই আন্দোলনকে ছড়িয়ে দিতে হবে গ্রামে গ্রামে, পাড়ায় পাড়ায়।

আশার কথা, আমাদের কিছু শিক্ষিত সমাজসচেতন উদ্যোগী ভাই এই বিষয়টা নিয়ে ভাবতে শুরু করেছে । এদের নিয়ে অবশ্যই স্বপ্ন দেখা যায় । এরা বোঝে, নেতৃত্বের সংকট নিয়ে মড়াকান্না কেঁদে কিছু হবে না । এমনকি তথাকথিত নেতৃত্বের সমালোচনা বা গোষ্ঠীগত কোন্দল ও কাদা ছোড়াছুড়ি করে লাভের লাভ কিছুই হবে না । মাঝখান থেকে আরও একটু বেশি পিছিয়ে পড়া হবে ।

এক্ষেত্রে আর্থিক সমস্যাটাও মনে হয় খুব বড়ো কোনো বাধা হয়ে দাঁড়াবে না। কারণ, আমরা সবাই জানি, ইসলামের মধ্যেই এর যথোপযুক্ত সমাধান আছে। যাঁরা পাড়ায় পাড়ায় মসজিদকে কেন্দ্র করে শিক্ষার সম্প্রসারণ এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার ভিতকে মজবুত করে প্রতিভার সঠিক পরিচর্যা ও বিকাশের কথা ভাবছেন, তাঁদের কাজে আমাদের সর্বতোভাবে সাহায্য করতে হবে।

একাজে একটা বড়ো সমস্যা আমাদের কাটিয়ে উঠতেই হবে। সেটা হল, আমাদের ব্যক্তিগত অন্ধ রাজনৈতিক মতাদর্শ ও আনুগত্য। কংগ্রেস, বামফ্রন্ট বা তৃণমূলী শাসনের মধ্যে কোনটা এরাজ্যের মুসলমানদের পক্ষে অপেক্ষাকৃত বেশি ভালো কিংবা মন্দ ছিল বা আছে, অথবা সিদ্ধার্থশংকর, জ্যোতি-বুদ্ধ বা মমতা শাসক হিসাবে মুসলমানদের প্রতি কত কম বা বেশি সহানুভূতিশীল- এই বিতর্কে খুব একটা বাস্তব লাভ নেই। এটা মেনে নিতে অসুবিধা কোথায়, আমরা সচেতন না হলে যে কোনো দল বা যে কোনো শাসক ফুটবল এবং লেঠেল হিসেবে আমাদের ব্যবহার করবেই! তাছাড়া আমরা শিক্ষিত সচেতন না হলে আমলা অাধিকারিকদের মনে গেড়ে থাকা যুগযুগান্তের, বংশপরম্পরার ব্রাহ্মণ্যবাদী বিদ্বেষবিষ কোনোদিনই আমরা প্রতিহত করতে পারবো না। ক্ষমতাসীন দল ও শাসকের পরিবর্তন হবে। কিন্তু এদের মানসিকতার পরিবর্তন কীভাবে সম্ভব ? তাই এদের পরিবর্তন করতে গেলে আগে নিজেদের পরিবর্তন করতে হবে। তার জন্য চাই শিক্ষা। হ্যাঁ, শিক্ষা, শিক্ষা এবং শিক্ষা। অন্য যা কিছু লাগবে, সেসবের কথা পরে ভাবলেও চলবে।

(লিখেছেন রাহাতপুর হাইমাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক Shaikh Safiulla সাহেব)

Check Also

করোনার কোপে বন্ধ শিক্ষকদের বদলি প্রক্রিয়া, থমকে অতিথি অধ্যাপকদের ডক্যুমেন্ট ভেরিফিকেশন, চিন্তায় শিক্ষকরা!

নিউজ ডেস্ক: করোনা সংক্রমণের আগে রাজ্যে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছিল সরকার। চাকরিরত শিক্ষকদের নিজ নিজ …

আদৌ কি এ বছরের মধ্যে সম্পন্ন হবে এসএসসির নিয়োগ প্রক্রিয়া? চিন্তায় হবু শিক্ষকরা!

নিউজ ডেস্ক: করোনার জেরে গোটা বিশ্বেরই অর্থনীতির বেহাল দশা। দেশের আর্থিক অবস্থাও ভালো নয়। দেশজুড়ে …

প্রত্যেক দেশবাসীকে অন্তত একশো টাকা করে অনুদান হিসেবে দান করার আর্জি জানালেন আশা ভোঁসলে

নিউজ ডেস্ক: করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সিনেজগতের নামজাদা তারকারা ইতিমধ্যেই তাদের সামর্থ অনুযায়ী অর্থের অনুদান করেছেন …

লকডাউন পরিস্থিতিতে অসহায় দুঃস্থ পরিবারের হাতে খাদ্যদ্রব্য সামগ্রী তুলে দিল হেল্প কেয়ার সোসাইটি

নিউজ ডেস্ক: লকডাউন পরিস্থিতিতে অসহায় দুঃস্থ পরিবারের হাতে খাদ্যদ্রব্য সামগ্রী তুলে দিল নদীয়া জেলার হাঁসখালী …

লকডাউনের ফলে চরম বিপাকে গৃহশিক্ষকরা, মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন পেশ!

নিউজ ডেস্ক: সাম্প্রতিক মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমনে বিপর্যস্ত দেশ থেকে বিদেশের মানুষ ও অর্থনীতি। প্রভাব …

আজ থেকেই শুরু হচ্ছে ভার্চুয়াল ক্লাস, রুটিন নিয়ে উঠছে প্রশ্ন!

নিউজ ডেস্ক: আজ, মঙ্গলবার থেকেই শুরু হচ্ছে ভার্চুয়াল ক্লাস। চলবে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত। বেলা ৩টে …

মুখ্যমন্ত্রীর আপদকালীন রিলিফ ফান্ডে‌ ১,০০,০০০ টাকা অনুদান বর্ধমান ফুডিস ক্লাবের

বর্ধমান: প্রায় ২৫০০ এরও বেশি পরিবারকে রেশন বিলি করা, প্রতিদিন প্রায় ১০০০ করে রুটি বিতরণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.