Breaking News
Home / পশ্চিমবঙ্গ / টিজিটি স্কেলের দাবিতে জমজমাট ধরনা আন্দোলন, বাড়িতে বসে না থেকে ময়দানে আসার ডাক!

টিজিটি স্কেলের দাবিতে জমজমাট ধরনা আন্দোলন, বাড়িতে বসে না থেকে ময়দানে আসার ডাক!

নিউজ ডেস্ক: টিজিটি স্কেল ও কেরিয়ার এডভ্যান্সমেন্ট স্কিম সহ একাধিক দাবি নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নেমেছেন রাজ্যের কয়েক হাজার গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকরা। চলতি মাসের ১০ তারিখ থেকে বিকাশ ভবনের সামনে শুরু হয়েছে ধরনা আন্দোলন কর্মসূচী। চলবে ১৪ তারিখ পর্যন্ত।

বেশ কিছুদিন থেকেই রাজ্যের শিক্ষকমহল বেতন বৃদ্ধি, পে-স্কেলে বৈষম্য, কর্মক্ষেত্রে বদলি সহ নানান দাবিদাওয়া নিয়ে জোরদার আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। সর্বভারতীয় টিজিটি স্কেলের দাবিতে আদালতেও শরণাপন্না হন গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকেরা। আদালতে মামলাও হয়। আদালত রাজ্য সরকারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলে। কিন্তু রাজ্যের তরফ থেকে তেমন কোনো সদিচ্ছা দেখা যাচ্ছে না। ফলে আবারও পথে নামতে বাধ্য হচ্ছেন রাজ্যের গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকরা।

গত ৩০ আগস্ট শিক্ষক সংগঠনগুলি দাবিদাওয়া আদায়ের জন্য শান্তিপূর্ণ মান্যতা সভা করে৷ যদিও টিজিটি স্কেলের ব্যাপারে রাজ্য শিক্ষা দফতর তেমন তৎপরতা দেখায়নি।

এরপর চার দফা দাবি নিয়ে গত বছর ৩, ৪ এবং ৫ নভেম্বর টানা ৩ দিন শহীদ মিনারের পাদদেশে ব্যাপক আন্দোলন সংগঠিত করেন তাঁরা। তারপরেও কোনো হেলদোল দেখা যায়নি রাজ্যের তরফ থেকে। রোপা-২০১৯ তেও সর্বভারতীয় টিজিটি স্কেলের ব্যাপারে কোনো কথা বলা হয়নি। ফলে তীব্র বেতন বঞ্চনার মুখে রাজ্যের গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকরা। এই অবস্থায় বেতন বঞ্চনা রুখতে টানা এক সপ্তাহ আন্দোলনের ডাক দিয়েছে গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকদের বৃহৎ সংগঠন বৃহত্তর গ্র্যাজুয়েট টিচার্স এডুকেশন বা বিজিটিএ।

এই প্রসঙ্গে শিক্ষক শিক্ষাকর্মী শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চের রাজ্য সম্পাদক কিংকর অধিকারী বলেন, গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকদের আন্দোলন জোরদার হোক। জয় আসবেই। শিক্ষক শিক্ষাকর্মী শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চ এই আন্দোলনের প্রতি সংহতি জ্ঞাপন করছে।

কিন্তু কেন এই আন্দোলন? প্রাপ্য ন্যায্য বেতনের বঞ্চনাই তাঁদেরকে বার বার পথে নামতে বাধ্য করছে বলে জানাচ্ছেন শিক্ষকেরা। তাঁরা বলছেন, ষষ্ঠ পে কমিশনের রিপোর্টে শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির একাধিক সুপারিশের কথা ঘোষণা করা হলেও টিজিটি স্কেল প্রদান নিয়ে একটা কথাও বলেননি কতৃপক্ষ। ইতিমধ্যে বেড়ে চলেছে পাস ক্যাটাগরির শিক্ষকদের সঙ্গে পিজি ক্যাটাগরির শিক্ষকদের বেতনের পার্থক্য। কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়মানুসারে একজন টিজিটি শিক্ষক ও পিজি শিক্ষকের মধ্যে বেতনের পার্থক্য ২,৭০০ টাকা থাকার কথা। সেখানে এরাজ্যে এই পার্থক্য দশ হাজার অতিক্রম করতে চলেছে। এই বঞ্চনার বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টের মামলা দায়ের করা হয়৷ হাইকোর্ট টিজিটি স্কেল মেটানোর নির্দেশ দিলেও রাজ্য সরকার হাইকোর্টের রায় মেনে গ্রাজুয়েট শিক্ষকদের টিজিটি স্কেল দিচ্ছে না। ফলে আবারও আন্দোলনের পথে যেতে হচ্ছে।

Check Also

২৫% হারে পেনশন বাড়ছে রাজ্যের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের, জারি বিজ্ঞপ্তি!

নিউজ ডেস্ক: আগেই রাজ্যের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের ক্ষেত্রে পেনশন বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছিল। এবার …

প্রয়াত যাদবপুরের প্রাক্তন সাংসদ ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ নেতাজী পরিবারের সদস্যা শ্রীমতি কৃষ্ণা বসু

নিউজ ডেস্ক: চলে গেলেন প্রাক্তন যাদবপুরের প্রাক্তন সাংসদ ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ নেতাজী পরিবারের সদস্যা শ্রীমতি …

অবশেষে সংশোধিত পেনশন সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি রাজ্যের, বড় স্বস্তি অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের

নিউজ ডেস্ক: আগেই রাজ্যের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের ক্ষেত্রে পেনশন বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছিল। এবার …

ডিএ শূণ্য, বাড়ির ভাড়ার অনুদান ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১২ শতাংশ, বাড়ছে ক্ষোভ, মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি কর্মচারী সংগঠনের

নিউজ ডেস্ক: বর্তমানে ডিএ শূণ্য। ডিএ বৃদ্ধির ব্যাপারে কোনও হেলদোল নেই রাজ্যের। ষষ্ঠ বেতন কমিশন …

‘কেউ যদি আধঘণ্টার মধ্যে হোয়াটসঅ্যাপে প্রশ্ন আউট করে দেয়, তবে আমি কী করব’: শিক্ষামন্ত্রী

‘নিউজ ডেস্ক: ২০১৯ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসই নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছিল। সাতদিনই পরীক্ষা শুরু কিছুক্ষণের মধ্যেই …

এসএসকে-এমএসকে শিক্ষাকেন্দ্রগুলি নিয়ে সরকারের বিশেষ কোনও পরিকল্পনা নেই: শিক্ষামন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: রাজ্যের শিশু ও মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্রগুলি (এসএসকে-এমএসকে) নিয়ে সরকারের এই মুহূর্তে বিশেষ কোনও পরিকল্পনা …

‘স্কুলগুলিতে শিক্ষকের অভাব নেই, আমরা এক লক্ষ শিক্ষক নিয়োগ করেছি’: শিক্ষামন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: রাজ্যের স্কুলগুলিতে শিক্ষকের অভাব নেই, তবে বহু জায়গায় এর সঠিক বিন্যাস নেই। সোমবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.