Breaking News
Home / কোলকাতা / চাকরির স্থায়িত্ব ও নির্দিষ্ট বেতন কাঠামোর দাবিতে ১৮ই জুলাই আবার পথে নামছেন রাজ্যের কয়েক হাজার অতিথি অধ্যাপকরা

চাকরির স্থায়িত্ব ও নির্দিষ্ট বেতন কাঠামোর দাবিতে ১৮ই জুলাই আবার পথে নামছেন রাজ্যের কয়েক হাজার অতিথি অধ্যাপকরা

বিশ্ব বার্তা নিউজ পোর্টাল: ৬০ বছর পর্যন্ত চাকরির স্থায়িত্ব ও স্থায়ী বেতন কাঠামোর দাবিতে ফের পথে নামতে চলেছেন রাজ্যের কয়েক হাজার অতিথি অধ্যাপকরা। এর আগে একই দাবি নিয়ে সমবেত হয়ে ৯জুন হাজরার মোড়ে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে একটি অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচি গ্রহণ করেন তাঁরা। এর পরই শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, নিজের বাড়িতে অতিথি অধ্যাপকদের ডাকেন আলোচনার জন্য। প্রায় ২ ঘন্টা ৪৫ মিনিট শিক্ষামন্ত্রী আলোচনা করেন ১০জন অতিথি অধ্যাপকদের সঙ্গে। ওইদিন আলোচনার পর ১৫ দিন সময় চেয়ে নেন শিক্ষামন্ত্রী এবং অতিথি অধ্যাপকদের আশ্বাস দেন তাদের সমস্ত দাবি খতিয়ে দেখা হবে বলে।

কিন্তু ১৫ দিন পর শিক্ষামন্ত্রীকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, অতিথি অধ্যাপকদের বিধানসভায় ডাকা হবে। সে কথারও খেলাপি করেন শিক্ষামন্ত্রী। এরপর বারবার ফোন করা হলে তিনি কোনো রকম কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি। ফলে শিক্ষামন্ত্রীর আচরণে ক্ষুব্ধ অতিথি অধ্যাপকরা আবারও ১৮ জুলাই হাজরার মোড়ে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে অবস্থান বিক্ষোভে নামতে চলেছেন বলে জানিয়েছেন অতিথি অধ্যাপকরা। যদি যথোপযুক্ত ব্যবস্থা না নেওয়া, তবে বিক্ষোভ অনশনে পর্যন্ত গড়াতে পারে বলে জানিয়েছে তাঁরা। এখন দেখার বিষয়, তাদের এই আন্দোলন, অনস্থান বিক্ষোভে আদৌ বরফ গেলে কিনা!

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বর্তমানে রাজ্যে অতিথি অধ্যাপক আছেন প্রায় ১৩ হাজার, ফুল টাইম অধ্যাপক আছেন প্রায় ১২হাজার এবং পার্ট টাইম অধ্যাপক আছেন ৫ হাজার। কলেজে ক্লাস নেওয়া ছাড়াও প্রশ্ন তৈরী, খাতা দেখা, পরীক্ষার ডিউটি দেওয়ার মত কাজগুলি করেন অতিথি অধ্যাপকেরা। কিন্তু তাঁদের মাসিক ভাতা খুবই কম। ক্লাস পিছু ভাতা কোথাও ১০০-১৫০ টাকা, আবার কোথাও খুব বেশি হলে ৫ হাজার টাকা। বর্তমানে একজন ছাত্রদের মাসিক খরচ অতিথি অধ্যাপকদের বেতনের থেকেও বেশি! 

Check Also

সাজানো ভণ্ডামি, পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের সঙ্গে আপনি বর্বরতা করেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে মুকুল রায়

বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যের শাসকদল জোর দিয়েছে জন সংযোগ কর্মসূচি। পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে দিদিকে বলো কর্মসূচি। এই কর্মসূচি উপলক্ষেই গত বুধবার দিঘার দত্তপুরে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। সেখানে দীঘর উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু প্রকল্প ঘোষণা করেন। এরপর বাড়ি বাড়ি ঢুকে সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগ শোনেন তিনি। যেতে যেতেই রাস্তার পাশে একটি চায়ের দোকানে ঢুকে নিজে হাতে চা বানান মুখ্যমন্ত্রী। এরপর তা পরিবেশনও করেন। এই ঘটনাকে জীবনের ছোটো ছোটো আনন্দদায়ক মুহূর্ত হিসাবেই অভিহিত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পদোন্নতির মাধ্যমে শিক্ষক নেওয়া হলে, আদৌ কি যোগ্য প্রার্থীরা প্রধান শিক্ষক হতে পারবেন? উঠছে প্রশ্ন!

এসএসসির মাধ্যমে সহ শিক্ষক নিয়োগে বারে বারে উঠেছে অভিযোগ। কখনো বা এনসিটির রুলস না মানা আবার কখনো বা যোগ্য প্রার্থীকে বাদ দিয়ে অযোগ্য প্রার্থীকে মেধা তালিকায় জায়গা করে দেওয়া। শুধুই যে সহ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এমন অভিযোগ আছে তা নয়, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও উঠেছে একাধিক অভিযোগ। এসএসসির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছেও প্রচুর। ফলে রাজ্যের স্কুল গুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ বারেবারে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে।

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত: বিজেপির শরিক নেতা

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত

দীঘায় চলবে সি প্লেন, তৈরি হবে পুরীর মত জগন্নাথ দেবের মন্দির: মমতা ব্যানার্জী

দীঘা

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি