Breaking News
Home / পলিটিক্স / উপযুক্ত নিরাপত্তার ব্যাবস্থা না থাকলে, ভোট নিতে যাবো না: তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ ভোট কর্মীদের

উপযুক্ত নিরাপত্তার ব্যাবস্থা না থাকলে, ভোট নিতে যাবো না: তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ ভোট কর্মীদের

বিশ্ব বার্তা নিউজ পোর্টাল: গত শুক্রবারে, একটি সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যের অতিরিক্ত মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সঞ্জয় বসু বলেন যে “এবার প্রতিটা বুথে সশস্ত্র পুলিশ থাকবে। সেটা কেন্দ্রীয় বাহিনীও হতে পারে আবার রাজ্যের পুলিশও হতে পারে।“ তার এই মন্তব্যের জন্য তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে ভোট কর্মীদের মধ্যে। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন তাঁরা। এর আগে শিক্ষক শিক্ষাকর্মী শিক্ষানুরাগী ঐক্যমঞ্চের মঞ্চের তরফ থেকে নির্বাচন আধিকারিক কে সমস্ত বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর মোতায়েনের ব্যাপারে ডেপুটেশন দেওয়া হয়। কিন্তু অতিরিক্ত নির্বাচন কমিশনারের ঘোষণার তীব্র নিন্দা করছেন ভোটকর্মীরা।

এই ব্যাপারে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষক শিক্ষাকর্মী শিক্ষানুরাগী ঐক্যমঞ্চের মঞ্চের যুগ্ম সম্পাদক কিঙ্কর অধিকারী। তিনি বলেন “রাজ্যে সাত দফায় ভোট হচ্ছে, তাহলে সব বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী দিতে অসুবিধা কোথায়? নির্বাচনে কোন দল জিতবে আমাদের মাথা ব্যাথা নেই। তবে আমাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে। তিনি আরো বলেন “উপযুক্ত নিরাপত্তার ব্যাবস্থা না হলে, ভোট কর্মীরা তাঁদের দায়িত্ব বয়কট করতে বাধ্য হবেন।”

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাজ্যে ব্যাপক সন্ত্রাস হয়েছে বলে বিরোধীরা দাবি করে। ভোটের দিন তীব্র গন্ডগোলে রাজ্যজুড়ে অশান্তির হয়েছিল। ররাজকুমার রায় নামে এক ভোট কর্মী মারা যান। তিনি ভোটের হিংসার বলি বলেই মনে করা হয়। ফলে এবারও তেমন কিছু ঘটলে, তার দায় কে নেবে?

এই পরিপ্রেক্ষিতে ভোট কর্মীরা বলছেন “সংবিধানে জীবন রক্ষা করা মৌলিক অধিকারের মধ্যে পড়ে। তা লংঘন করে কোনোভাবেই আমরা ভোটকর্মীরা দায়িত্ব পালন করতে বাধ্য নয়।”

এই প্রসঙ্গে এক ভোট কর্মী তৌসিফ জামাল সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন “নিন্দা করছি সেই সব নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকদের যারা নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে চারচাকা গাড়িতে সামনে ও পিছনে ফোর্স নিয়ে ঘোরেন সারাবছর কিন্তু নির্বাচনের সময় আমাদের একদিনের জন্য সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে ব্যার্থ।”

নারায়ণ রাই বলেন “ভোটকর্মীরা বুথে গেলে তবেই কিন্তু ভোট করা সম্ভব। কেন্দ্রীয় বাহিনী ছাড়া কেউ বুথে যেতে আগ্রহী নই, এ দাবিতে সোচ্চার হন, রাজকুমারের স্মৃতি টাটকা রাখুন।”

আর এক ভোট কর্মী সুশোভন মুখার্জী সমস্ত শিক্ষক শিক্ষিকা দের কাছে অনুরোধ করেন যে “আগামী ট্রেনিংয়ের দিনগুলো তে ট্রেনিং শুরুর আগে আপনারা সবাই এই দাবি তুলুন, ‘প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকলে আমরা ভোট নিতে যাবো না’। প্রতিটি ঘরে উপস্থিত ভোট কর্মী দের থেকে স্বাক্ষর নিয়ে দাবি পত্র পেশ করুন।”

রাজ্যে সাত দফায় ভোট ঘোষণার পর, ভোট কর্মীদের মধ্যে আশার সৃষ্টি হয়েছিল, যে এবার অন্তত সমস্ত বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট সম্পন্ন হবে এবং ভোট কর্মীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা হবে। কিন্তু সেটা সেটা না হওয়াটা সত্যিই দুঃখের। ইলেকশন কমিশনের উচিত, অবিলম্বে বিষয়টি খতিয়ে দেখে ভোট কর্মীদের দাবি-দাওয়া অনুযায়ী, তাঁদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা।

Check Also

রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে এক রোগিণীর মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক: করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজ্যে মৃত্যু হল আর একজনের। এটি নিয়ে রাজ্যে করোনায় মৃতের …

করোনাতে আক্রান্ত হয়ে আমেরিকায় ১ লক্ষ থেকে ২ লক্ষ লোক মারা যেতে পারেন! 

নিউজ ডেস্ক: এখনও পর্যন্ত আমেরিকাতে ২৪৮৪ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে করোনাভাইরাসের কারণে। আমেরিকায় ১৪২,০৭০ জনের …

বিদেশ যোগ নেই, ট্রেনে চেপেই অফিসে যেতেন, করোনায় আক্রান্ত শেওড়াফুলির বাসিন্দা, আতঙ্কিত পরিবার 

নিউজ ডেস্ক: রাজ্যে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়ল। হুগলি জেলার শেওড়াফুলির বাসিন্দা এক প্রৌঢ়র …

মৃত্যুপুরী স্পেনে একদিনে রেকর্ড ৮৩৮ জনের মৃত্যু, দেশটিতে মোট মৃত্যু হয়েছে ৬৫২৮ জনের

নিউজ ডেস্ক: ভয়ঙ্কর করোনাভাইরাসে প্রবল ভাবে বিধ্বস্ত স্পেন। মৃত্যু মিছিল কোনো ভাবেই থামছে না সেখানে। …

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই চাকরি হারাতে চলেছেন ১০ হাজার ৩২৩ শিক্ষক

নিউজ ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের জেরে যখন গোটা দেশর নাগরিকদের জীবনে অন্ধকার নেমে এসেছে। সেই সময় …

করোনার থাবায় জীবন ও জীবিকা বিপর্যস্ত গৃহশিক্ষকদের, রাজ্যের মুখাপেক্ষী গৃহশিক্ষকরা

নিউজ ডেস্ক: সাম্প্রতিক মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমনে বিপর্যস্ত দেশ থেকে বিদেশের মানুষ ও অর্থনীতি। প্রভাব …

বিশ্বে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লক্ষের দোরগোড়ায়, মৃত্যু হয়েছ ৩০ হাজার ৮৭৯ জনের

নিউজ ডেস্ক: গোটা বিশ্বে বেড়েই চলছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনার ভয়ে থরহরি কম্প গোটা …