Breaking News
Home / ধর্ম / আমার পিতা ভগবান রামের ৩০৯ তম বংশধর, আমরা লর্ড রামের পুত্র কুশের বংশধর: বিজেপি সংসদ

আমার পিতা ভগবান রামের ৩০৯ তম বংশধর, আমরা লর্ড রামের পুত্র কুশের বংশধর: বিজেপি সংসদ

বিশ্ব বার্তা নিউজ পোর্টাল: জয়পুরের প্রাক্তন রাজকন্যা এবং রাজসমন্দের বিজেপি সাংসদ দিয়া কুমারী দাবি করেছেন যে তাঁর পরিবার রামের ছেলের বংশধর। তিনি সুপ্রীম কোর্টে তাঁর পরিবারের বংশের প্রমাণ দিতে রাজি, আশা করছেন যে এটি অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণকে ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করবে। জয়পুরের রাজপরিবারের সদস্য কুমারী শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের এক প্রশ্নের জবাবে এই মন্তব্য করেন।

দিয়া কুমারী মন্তব্য করেন, “আমার পরিবার ভগবান রামের বংশধর। আমার পিতা ছিলেন ভগবান রামের 309 তম বংশধর। আমাদের কাছে নথি রয়েছে যা প্রমান করে আমরা লর্ড রামের পুত্র কুশের বংশোদ্ভূত। আমরা কুশওয়াহা বা কছাবা বংশের অন্তর্ভুক্ত।”

দিয়া কুমারী আরো বলেন, “যদি সুপ্রিম কোর্ট চায়, তবে আমরা আমাদের বংশের রাম সম্পর্কিত নথিগুলি প্রদর্শন করতে পারিI আমি চাই রাম মন্দিরটি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নির্মিত হোক এবং যদি প্রক্রিয়াটি ত্বরান্বিত করার প্রয়োজন হয়, তবে আমরা সুপ্রিম কোর্টের সামনে নথিগুলি প্রদর্শন করতে পারি।”

সুপ্রিম কোর্ট গত শুক্রবার ‘রঘুবংশ’ (রামের বংশধর) কেউ এখনও অযোধ্যাতে অবস্থান করছেন’, এই প্রশ্নটি রাম জন্মভূমির অন্যতম পক্ষ ‘রাম লালা বিরাজমান’-এর কাছে রেখেছিল।

সিনিয়র অ্যাডভোকেট কে পারসরণ যখন রাম লালা বিরাজমানের পক্ষে উপস্থিত হয়ে, যুক্তি দিচ্ছিলেন যে দেবতা এবং জন্মস্থান উভয়ই “আইনশাস্ত্র” সত্তা, তখন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গোগোইয়ের নেতৃত্বে পাঁচ বিচারপতির সংবিধান বেঞ্চ পারসরণকে এই প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেছিলেন।

বেঞ্চ বলেছিল, “আমরা কেবল ভাবছি যে ‘রঘুবংশ’ রাজবংশের কেউ এখনও সেখানে (অযোধ্যাতে) বসবাস করছেন কিনা!”

পরশরান এর প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছিলেন “আমার কাছে এই বিষয়ে কোনও তথ্য নেই। আমরা এটি জানার চেষ্টা করব।”

দিয়া কুমারী আরও বলেন, “আরও বেশ কয়েকজন রয়েছেন যারা ভগবান রামের বংশধর বলে দাবি করেছেন। প্রত্যেক ভারতীয় ভগবান রামের বংশধর বলে দাবি করে গর্ববোধ করবেন।”

Check Also

সাজানো ভণ্ডামি, পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের সঙ্গে আপনি বর্বরতা করেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে মুকুল রায়

বেশ কিছুদিন ধরেই রাজ্যের শাসকদল জোর দিয়েছে জন সংযোগ কর্মসূচি। পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে দিদিকে বলো কর্মসূচি। এই কর্মসূচি উপলক্ষেই গত বুধবার দিঘার দত্তপুরে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। সেখানে দীঘর উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু প্রকল্প ঘোষণা করেন। এরপর বাড়ি বাড়ি ঢুকে সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগ শোনেন তিনি। যেতে যেতেই রাস্তার পাশে একটি চায়ের দোকানে ঢুকে নিজে হাতে চা বানান মুখ্যমন্ত্রী। এরপর তা পরিবেশনও করেন। এই ঘটনাকে জীবনের ছোটো ছোটো আনন্দদায়ক মুহূর্ত হিসাবেই অভিহিত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পদোন্নতির মাধ্যমে শিক্ষক নেওয়া হলে, আদৌ কি যোগ্য প্রার্থীরা প্রধান শিক্ষক হতে পারবেন? উঠছে প্রশ্ন!

এসএসসির মাধ্যমে সহ শিক্ষক নিয়োগে বারে বারে উঠেছে অভিযোগ। কখনো বা এনসিটির রুলস না মানা আবার কখনো বা যোগ্য প্রার্থীকে বাদ দিয়ে অযোগ্য প্রার্থীকে মেধা তালিকায় জায়গা করে দেওয়া। শুধুই যে সহ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এমন অভিযোগ আছে তা নয়, প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও উঠেছে একাধিক অভিযোগ। এসএসসির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছেও প্রচুর। ফলে রাজ্যের স্কুল গুলিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ বারেবারে বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে।

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত: বিজেপির শরিক নেতা

এক দেশ, এক পরিবার, এক সন্তান, আইন করে চালু করা উচিত

দীঘায় চলবে সি প্লেন, তৈরি হবে পুরীর মত জগন্নাথ দেবের মন্দির: মমতা ব্যানার্জী

দীঘা

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

সরকারের অনৈতিক সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

অতিথি অধ্যাপকদের স্থায়ীকরণে ইউজিসির নিয়মকে লঙ্ঘন, আদালতের পথে চাকুরী প্রার্থীদের একাংশ!

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি

কলেজের অতিথি অধ্যাপকদের ধামাকাদার বেতন বৃদ্ধি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *